ওষুধ নয় নিয়মিত গরম পানি খেলেই নিষ্পত্তি হবে করোনা ভাইরাস


২০১৯ সালের ডিসেম্বর মাসে  চীনের ঊহান প্রদেশে Covid-19 বা করোনা ভাইরাসের  আবিষ্কার হওয়ার পর থেকে এখন পর্জন্ত এই প্রাণঘাতি ভাইরাসটি প্রায় ৩০০ বারের মতো রুপ বদল করছে।শিশু থেকে শুরু করে মাঝ বয়সি, বৃদ্ধ,পুরুষ,মহিলা সবার মাঝেই ছড়িয়ে পরেছে Covid-19 বর্তমানে  বিশ্বজুড়ে Covid-19 বা করোনা ভাইরাসে ৩ লাখ ১৬ হাজারের বেশি মানুষের মৃত্যু হয়েছে এবং সংক্রামিত হয়েছেন ৫৫ লাখের বেশি মানুষ ।

মূলত পুরো বিশ্বে করোনার কোন প্রতিষেধক তৈরি না হওয়ায় ভাইরাসটি একের পর এক গ্রাস করছে নতুন নতুন প্রাণ। তবে করোনা ভাইরাস এর কোন ভ্যাক্সিন বা কোনো প্রকার টিকা এখন পর্যন্ত  আবিষ্কার করা না গেলেও সারা বিশ্বের বিজ্ঞানী এবং গবেষকরা করোনা ভাইরাস কিভাবে প্রতিরোধ করা জায় সেজন্য বিভিন্ন পরামর্শ দিয়ে আসছেন শুরু থেকেই। বিশেষজ্ঞদের পরামর্শ অনুযায়ী করোনা ভাইরাস জেন আমাদের শরীরে প্রবেশ করতে না পারে বা আমরা জাতে করোনা ভাইরাস দ্বারা আক্রান্ত না হই  সেইজন্য আমাদের নিয়মিত এবং ঘন ঘন সাবান দিয়ে ভালোভাবে হাত পরিষকার করতে বলেছেন এবং করোনা ভাইরাস জাতে আমাদের শরীরে প্রবেশ করতে না পারে সেইজন্য মাস্ক ব্যবহার করতে বলেছেন ।

কিন্তু আমরা যদি করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হই আমাদের শরীরে যদি  করোনা ভাইরাসের লক্ষন দেখা দেয় তখন আমরা কি করব ??অথবা করনা ভাইরাস জাতে আমাদের শরীরে প্রবেশ করতে না পারে সেই জন্য আমাদের করনীয় কি??

এবার জানা গেলো করোনা থেকে বাঁচার কার্যকরী একটি উপায়, 

যেহেতু সারাবিশ্বে কোথাও এখনো করোনা ভাইরাসের  কোন প্রতিষেধক  বা ভ্যাক্সিন আসেনি, সেহেতু এই ভাইরাসে আক্রান্ত হলে নিজেকে রক্ষা করতে দরকার গরম পানি, এমনটা জানিয়েছেন জার্মান চিকিৎসকরা। জার্মান চিকিৎসকদের মতে, করোনা হলে বেশি বেশি গরম পানি খাওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন তারা ।

কিন্তু শুধুমাত্র গরম পানি খেলেই ভালো ফলাফল পাবেন না।এজন্য শুধু গরম পানি না খেয়ে হাল্কা বা মৃদু গরম পানির সাথে লেবুর রস ,কালজিরা, কিংবা মধু মিশিয়েও খেতে পারে।

করোনার সংক্রমন রোধ করার জন্য বিশেষজ্ঞরা জেভাবে গরম পানি খাতে বলছেন তা দেখে নিন ঃ

১। গলায় খুসখুসে ভাব দূর করতে অ্যান্টিব্যাকটেরিয়াল ও অ্যান্টি ইনফ্লেমেটরি উপাদান সমৃদ্ধ আদা           আর মধুর সঙ্গে গরম চা পান করুন।

২। হালকা গরম পানিতে লেবুর রস মিশিয়ে পান করুন।

৩। এক চা চামচ পাতি লেবুর রসের সঙ্গে সমপরিমাণ মধুর মিশ্রণ দিনে দু’বার করে খান। এই মিশ্রণ            গলার ভেতরের সংক্রমণ দ্রুত কমাতে সাহায্য করে, সঙ্গে গরম পানি মিশিয়ে নিন

৪। সর্দি-কাশির সমস্যায় গরম পানির সঙ্গে লবণ মিশিয়ে নিয়ে দিনে দু’বার ভাপ নিন। নাক ও বুকে               জমে  থাকা কফ বের হয়ে যাবে। যে কোনো জীবাণুর সংক্রমণ দূর করতেও এই গরম পানির ভাপের       জুড়ি নেই।


Post a Comment

0 Comments